| |

নেত্রকোনায় ইউপি চেয়ারম্যনসহ চারজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  নেত্রকোনার খালিয়াজুরী উপজেলার চাকুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও খালিয়াজুরী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদসহ চারজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা হয়েছে।

 

খালিয়াজুরী উপজেলার বল্লী গ্রামের মো. ফাহিম বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার বিজ্ঞ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটি করেছেন।

 

মামলার অন্য আসামীরা হচ্ছেন- চেয়ারম্যানের ছেলে লেপসিয়া গ্রামের সৌরভ, ফতুয়া গ্রামের আবু বক্কর ও একই গ্রামের মো. হারুন মিয়া। বিজ্ঞ বিচারক মামলাটি নথিভুক্ত করার জন্য খালিয়াজুরী থানার ওসিকে নির্দেশ দেন। সোমবার মামলার বাদী ফাহিম বিষয়টি সাংবাদিকদের জানান।
চাকুয়া ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি ও আমার ছেলের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের করা হয়েছে শুনেছি। তবে অভিযোগটি সম্পূর্ন অসত্য। ওই দিন আমরা কেউ ঘটনাস্থলে ছিলাম না এবং মোটর সাইকেলটিও আমার নয়।
অভিযোগে জানা গেছে, জেলার খালিয়াজুরীর চাকুয়া ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালামের সাথে নির্বাচনসহ বিভিন্ন গ্রাম্য বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ইউনিয়নের বল্লী গ্রামের হানিফ মিয়ার বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে হানিফ মিয়াকে চেয়ারম্যান ও তার লোকজন হত্যার হুমকি পর্যন্ত দেয়। এরই জের ধরে গত ১৬ ডিসেম্বর সকালে মামলার আসামীরা হাদবিলা হাওরের পাশে রাস্তার ওপর মোটর সাইকেলে তাকে চাপা দেয় এবং লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে মারাত্মক জখম করে। মাটিতে পুতিয়া ফেলার চেষ্টার সময় তার ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে গেলে আসামীরা মোটর সাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায়।

 

আহত হানিফ মিয়াকে খালিয়াজুরী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে রেফার করেন। অবস্থার অবনতি হলে তাকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে ১৮ ডিসেম্বর তিনি মারা যান। এ ঘটনায় হানিফ মিয়ার ছেলে মো. ফাহিম বাদী হয়ে চারজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।

খালিয়াজুরী থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মো. শওকত আলী জানান, ঘটনাস্থল থেকে মোটর সাইকেল জব্দ করা হয়েছে। সেটি পুলিশের হেফাজতে আছে। আদালতে মামলার বিষয়টি তিনি এখনও জানেন না।